miércoles, 19 de octubre de 2016

SHAHID QADRI [19.321]


Shahid Qadri

Shahid Quadri (también escrito Quaderi; 14 agosto 1942 - 28 agosto 2016) fue un poeta y escritor de Bangladesh. Por su poesía, fue galardonado con el Premio Literario Academia Bangla en 1973 y Ekushey Padak en 2011.

Qadri es uno de los poetas prominentes de la poesía bengalí, trajo nuevos puntos de vista a la escena de Bangladesh mediante la introducción del urbanismo y un sentido de la modernidad. Su poesía está impregnada con el patriotismo, el cosmopolitismo y el universalismo y en su tratamiento de la naturaleza y la vida de la ciudad, profundiza en los conflictos y la sensación de alienación que impregnan la vida moderna. 

A pesar de que sólo publicó cuatro libros de poesía, "su tono, la aliteración, las imágenes y el uso de símil le hicieron un observador destacado en verso bengalí." 

Quadri fue amigo del poeta Shamsur Rahman. A la edad de catorce años, publicó por primera vez en Kabita, editado por Buddhadeb Bosu, que también es un poeta importante de la década de los 30; Qadri, posteriormente, se convirtió en una figura muy conocida entre los poetas de Dhaka y Kolkata. 

Después de la publicación de su tercer libro, Quadri dejó de escribir y fue a vivir en Londres y Alemania. Más tarde, en la década de los 80, se trasladó a los Estados Unidos y vivió en Boston, donde se casó con su segunda esposa, Dana Quadri que murió a finales de los años 90. Desde entonces, volvió a escribir y publicó su cuarto libro en 2009. Aunque se ha dicho que "en el último número de Kali O Kolom, rompió los cerca de tres décadas de silencio al escribir dos poemas," que en realidad srompieron su silencio, contribuyendo a la primera edición de Shabdaguchha, una revista de poesía bilingüe, publicada en Nueva York. 

Sus poemas han sido traducidos al Inglés por muchos estudiosos, como Kabir Chowdhury, Kaiser Haq, Farida Majid. 

Muerte 

Qadri murió a la edad de 74 años el 28 de agosto de 2016, de enfermedad renal. Fue hospitalizado después de luchar con problemas renales graves desde una década antes de su muerte. 

Obras 

Uttaradhikar (1967)
Tomake Abhibadan priyatama (1974)
Prem Biraha Bhalobasar Kabita 
Kothayo Kono Krondon Nai 
Amar Chombongullo Pouchhaya Deo 


QUE SERÁ SERÁ, Shahid Qadri

"Have no fear, darling
I'll have it all arranged
The army will carry rose-bunches
On their shoulders,
March past and salute
Only you, darling."

[From "I salute You, Darling" by Shahid Qadri]




De la mano de la traductora María Barrera nos adentramos en la poesía de Bangladesh. Ella nos presenta una breve nota sobre tres de los más representativos autores de aquel país: Mohammad Nurul Huda, Nirmalendu Goon y Shahid Kadri.

http://circulodepoesia.com/2016/10/poetas-de-bangladesh/


El 28 de agosto de 2016, el poeta bengalí Shahid Kadri falleció en la ciudad de Nueva York, Estados Unidos. En vano se buscarán obituarios suyos en los medios de alcance masivo de ese país, ni tampoco en aquellos de habla hispana. La muerte de uno de los más altos exponentes de la lírica de Bangladesh pasó desapercibida en un mundo que aún se niega a observar a ese país en toda su riqueza intelectual y cultural.

La obra de Kadri está contenida en tan solo cuatro colecciones, la última publicada mucho después de la tercera, cuando sus admiradores habían dejado de esperar otro libro suyo. Tal sobriedad no es común entre sus contemporáneos. Refleja el modo único en que el poeta encaró su vocación: con su arte fue capaz de definir las preocupaciones más intensas sin recurrir a grandilocuencias, cuidando de concentrar su voz y de tornarla tan impalpable y acerada como fuese posible. Una voz urbana, comprometida con su tiempo – particularmente turbulento, desde un punto de vista político – pero, a la vez, esencialmente la voz de un outsider. Ello no impidió, empero, que su talento fuese reconocido con honores como el Premio de la Academia Bangla, en 1973 y la condecoración civil de más alto nivel en Bangladesh, el Ekushey Padak, in 2011.

En las décadas finales de su vida, Kadri abandonó su país de origen, sin cesar, empero de contemplarlo a través del prisma de la distancia y de la memoria. Y sin dejar de apreciar, con una mirada desencantada, las realidades de Europa, donde vivió por varios años, y de los Estados Unidos. Ese exilio, autoimpuesto, se rompería finalmente luego de su muerte: su cuerpo reposa en el Cementerio de los intelectuales martirizados, en Dacca, Bangladesh.  


Reunión inadecuada

Cerdos salvajes encontrarán su barro favorito.
Alciones obtendrán los peces anhelados.
Noches – opacidad profunda – infiltrarán el blanco de una lluvia furiosa.
Danzarán pavorreales en la densa floresta.

Amantes ciertamente harán el amor con amantes,
Sin ser jamás felices, jamás, jamás, jamás…

Peregrinos tornarán solos a su morada.
En una olla vacía,
Granos de arroz brillarán como astros
Y la antigua canción, largamente olvidada, retornará en tu boca.

Amantes ciertamente harán el amor con amantes,
Sin ser jamás felices, jamás, jamás, jamás…

Se detendrán desfiles en marciales barracas.
Tigres hambrientos arrebatarán el venado azul,
La brisa del pueblo traerá
La suave melodía de una canción de mujeres.
Y ustedes hallarán un espacio en donde yacer juntos.

Amantes ciertamente harán el amor con amantes,
Sin ser jamás felices, jamás, jamás, jamás.



Querida

Pensé enviar una estrella dorada
Para tus trenzas –
Pero era tan sólo una palabra:
Vaga, azul, perlada de rocío.
He venido ahora, el bolsillo vacío,
Una botella de perfume empapada en mis sueños.
De noche te percibo en ellos:
En el grupo de hetairas y sin embargo sola
Mientras que tantos rostros, como el mío,
Ansían en fila, esperando por ti,
por siempre.



Insurrección

En el jardín de Manzul Elahi
Sentados, en la velada moteada,
Algunos conversamos de tantas cosas
Unos hablan sobre Bangabandhu,
Y de ese tema pasaron al asesinato de Allende.
Otros evocaron la historia del golpe de estado en Chile.
Otros comentaron los conflictos de Irán e Irak.
El futuro incierto de Cuba luego de la partida de Castro.
El dominio de mercaderes inescrupulosos.
Las angustias de la gente de Bengala.
El hambre de por vida, hablamos de todo eso
Mientras mascábamos anacardos y tomábamos café.  
La noche descendía gradualmente
Como el silencio en los pasos de un gato negro.
Las luciérnagas titilaban entre mesas y sillas
Como si fuesen a persistir centelleando por siempre.
Pasamos al comedor.
Manzur Elahi repetía, el rifle es la fuente de todo poder.
La sociedad sin clases no se puede lograr sin derramamiento de sangre.
Nadie abandona sus intereses de clase.
Yo miré por la ventana.
Observé el jardín de Manzur Elahi capturado por las luciérnagas,
Sin una batalla, sin derramamiento de sangre.




Sentidos

(Para Mahbub Hasan)

El shalikh* danza en el cable telegráfico
Las hojas del árbol de jaca, del tamaño de palmas
La luz se subsume en los arbustos a la orilla del estanque. Aquí viene el Ashwin**.
Mis días se vaciaron
¿Por qué los días están vacíos?

En las fronteras de las nubes blancas como la nieve
¿A quién envía el cielo sus resplandores de zafiro? Aquí viene el Ashwin
Mis días se vaciaron
¿Por qué los días están vacíos?

Al igual que esos manifiestos clandestinos que se distribuyen por manos jóvenes
La gran ciudad está tan animada
Aquí viene el Ashwin
Mis días se vaciaron
¿Por qué los días están vacíos?

¿Cuándo el Shefali cae en el patio de alguien? ¿Puede el sabor de los días de infancia recordarse?
Como esas hojas volantes clandestinas que manos jóvenes distribuyen
La gran ciudad está tan afanada
Aquí viene el Ashwin
Mis días se vaciaron
¿Por qué los días están vacíos?

*El shalik es un pájaro nativo de Bengala (ndt)

*Ashwin es el séptimo mes del calendario solar de Bengala. La referencia del poeta a ese mes implica una alusión al otoño. (ndt)



from উত্তরাধিকার (uttarAdhikAr 1969)


সহসা সন্ত্রাস ছুঁলো। ঘর-ফেরা রঙিন সন্ধ্যার ভীড়ে
যারা তন্দ্রালস দিগ্বিদিক ছুটলো, চৌদিকে
ঝাঁকে ঝাঁকে লাল আরশোলার মত যেনবা মড়কে
শহর উজাড় হবে, -– বলে গেল কেউ –- শহরের
পরিচিত ঘণ্টা নেড়ে খুব ঠাণ্ডা এক ভয়াল গলায়

এবং হঠাৎ
সুগোল তিমির মতো আকাশের পেটে
বিদ্ধ হলো বিদ্যুতের উড়ন্ত বল্লম!
বজ্র-শিলাসহ বৃষ্টি, বৃষ্টি : শ্রুতিকে বধির ক’রে
গর্জে ওঠে যেন অবিরল করাত-কলের চাকা,
লক্ষ লেদ-মেশিনের আর্ত অফুরন্ত আবর্তন!

নামলো সন্ধ্যার সঙ্গে অপ্রসন্ন বিপন্ন বিদ্যুৎ
মেঘ, জল, হাওয়া, –-
হাওয়া, ময়ুরের মতো তার বর্ণালী চিৎকার,
কী বিপদগ্রস্ত ঘর-দোর,
ডানা মেলে দিতে চায় জানালা-কপাট
নড়ে ওঠে টিরোনসিরসের মতন যেন প্রাচীন এ-বাড়ি!
জলোচ্ছ্বাসে ভেসে যায় জনারণ্য, শহরের জানু
আর চকচকে ঝলমলে বেসামাল এভিনিউ

এই সাঁঝে, প্রলয় হাওয়ার এই সাঁঝে
      (হাওয়া যেন ইস্রাফিলের ওঁ)
বৃষ্টি পড়ে মোটরের বনেটে টেরচা,
ভেতরে নিস্তব্ধ যাত্রী, মাথা নীচু
ত্রাস আর উৎকণ্ঠায় হঠাৎ চমকে
দ্যাখে, – জল
      অবিরল
জল, জল, জল
তীব্র, হিংস্র
খল,
আর ইচ্ছায় কি অনিচ্ছায় শোনে
ক্রন্দন, ক্রন্দন
নিজস্ব হৃৎপিণ্ডে আর অদ্ভুত উড়োনচণ্ডী এই
বর্ষার ঊষর বন্দনায়

রাজত্ব, রাজত্ব শুধু আজ রাতে, রাজপথে-পথে
বাউণ্ডুলে আর লক্ষ্মীছাড়াদের, উন্মূল, উদ্বাস্তু
বালকের, আজীবন ভিক্ষুকের, চোর আর অর্ধ-উন্মাদের
বৃষ্টিতে রাজত্ব আজ। রাজস্ব আদায় করে যারা,
চিরকাল গুণে নিয়ে যায়, তারা সব অসহায়
পালিয়েছে ভয়ে।

বন্দনা ধরেছে, -– গান গাইছে সহর্ষে
উৎফুল্ল আঁধার প্রেক্ষাগৃহ আর দেয়ালের মাতাল প্ল্যাকার্ড,
বাঁকা-চোরা টেলিফোন-পোল, দোল খাচ্ছে ওই উঁচু
শিখরে আসীন, উড়ে-আসা বুড়োসুড়ো পুরোন সাইনবোর্ড
তাল দিচ্ছে শহরের বেশুমার খড়খড়ি
কেননা সিপাই, সান্ত্রী আর রাজস্ব আদায়কারী ছিল যারা,
পালিয়েছে ভয়ে।

পালিয়েছে, মহাজ্ঞানী, মহাজন, মোসাহেবসহ
অন্তর্হিত,
বৃষ্টির বিপুল জলে ভ্রমণ-পথের চিহ্ন
ধুয়ে গেছে, মুছে গেছে
কেবল করুণ ক’টা
বিমর্ষ স্মৃতির ভার নিয়ে সহর্ষে সদলবলে
বয়ে চলে জল পৌরসমিতির মিছিলের মতো
নর্দমার ফোয়ারার দিকে, –-

ভেসে যায় ঘুঙুরের মতো বেজে সিগারেট-টিন
ভাঙা কাচ, সন্ধ্যার পত্রিকা আর রঙিন বেলুন
মসৃণ সিল্কের স্কার্ফ, ছেঁড়া তার, খাম, নীল চিঠি
লন্ড্রির হলুদ বিল, প্রেসক্রিপশন, শাদা বাক্সে ওষুধের
সৌখীন শার্টের ছিন্ন বোতাম ইত্যাদি সভ্যতার
ভবিতব্যহীন নানাস্মৃতি আর রঙবেরঙের দিনগুলি

এইক্ষণে আঁধার শহরে প্রভু, বর্ষায়, বিদ্যুতে
নগ্নপায়ে ছেঁড়া পাৎলুনে একাকী
হাওয়ায় পালের মতো শার্টের ভেতরে
ঝকঝকে, সদ্য, নতুন নৌকার মতো একমাত্র আমি,
আমার নিঃসঙ্গে তথা বিপর্যস্ত রক্তেমাংসে
নূহের উদ্দাম রাগী গরগরে গলা আত্মা জ্বলে
কিন্তু সাড়া নেই জনপ্রাণীর অথচ
জলোচ্ছ্বাসে নিঃশ্বাসের স্বর, বাতাসে চিৎকার,
কোন আগ্রহে সম্পন্ন হয়ে, কোন শহরের দিকে
জলের আহ্লাদে আমি একা ভেসে যাবো?

p.11


সঙ্গতি (saMgati, p.24)

আমরা কাতারে-কাতারে দাঁড়িয়ে আছি ব্যক্তিগত
দূরত্বে
সবাই। নামহীন অহংকারে হলুদ একসার বিকৃত
মুখ
পরস্পর থেকে ফেরানো; হৃৎপিন্ডের মধ্যে লুকোনো
নিতান্ত নিজস্ব
কাঁচ, - সেখানেই উৎসুক ফিরে ফিরে তাকানো।
কিন্তু সন্ধ্যার নির্বোধ হাওয়া জমিয়ে তুললো
একটি সাধারণ পরিমল, -- এ যখন ও-র গন্ধে সজাগ,
আমরা প্রত্যেকে ভ্রু-কুঁচকে যাই-যাই, তখনি সে এসে দাঁড়ালো
স্কার্ট-ঢাকা সোনালি চুলের ইন্দ্রজালে দীর্ঘ, ঋজু ক্ষীণ ঊরূর বিদেশিনী
আমরা তাকে ঘিরে ভিখিরির মত গুঞ্জন রটালাম।


স্মৃতি : কৈশোরিক : শহীদ কাদরী


অদৃশ্য ফিতে থেকে ঝুলছে রঙিন বেলুন
রাত্রির নীলাভ আসঙ্গে আর স্বপ্নের ওপর
যেন তার নৌকা- দোলা; সোনার ঘণ্টার ধ্বনি
ছড়িয়ে পড়ছে সমস্ত শহরের! আমি ফিরলাম
ঝর্ণার মতো সেই গ্রীষ্ম দিনগুলোর ভেতর
যেখানে শীৎকার, মত্ততা আর বেলফুলে গাঁথা
জন্মরাত্রির উৎসবের আলো; দীর্ঘ দুপুর ভরে
অপেমান ঘোড়ার ভৌতিক পিঠের মতো রাস্তাগুলো,
গলা পিচে তরল বুদ্বুদে ছলছল নক্ষত্ররাজি,
তার ওপর কোমল পায়ের ছাপ, -চলে গেছি
শব্দহীন ঠাকুর মার ঝুলির ভেতর।

  দেয়ালে ছায়ার নাচ
সোনালি মাছের। ফিরে দাঁড়ালাম সেই
গাঢ়, লাল মেঝেয়, ভয়-পাওয়া রাত্রিগুলোয়
যেখানে অসতর্ক স্পর্শে গড়িয়ে পড়লো কাঁচের
সচ্ছল আধার, আর সহোদরার কান্নাকে চিরে
   শূন্যে, কয়েকটা বর্ণের ঝলক
নিঃশব্দে ফিকে হল; আমি ফিরে দাঁড়ালাম সেই
মুহূর্তটির ওপর, সেই ঠাণ্ডা করুণ মরা মেঝেয় |
p.25


পাশের কামরার প্রেমিক : শহীদ কাদরী


গলা চিরে থুথু ফ্যালে দাপায় কপাট নড়বড়ে
শ্বাসকষ্টে যা তা' প্রেম, ঠাণ্ডা হাওয়া
হৃৎপিণ্ডে বিরক্তিকর উৎকট নর্তন
অলৌকিক ইচ্ছা তার তাকে দিয়ে টেবিল বাজায়

মাঝরাতে নিঃসঙ্গতা রাঙিয়ে টেবিলে
একজোড়া লালচোখ, একটি লণ্ঠন
বিশ শতকের সুন্দর সুগোল এক পেটের ভেতরে যেন
দেখে নেয় প্রাক্তন প্রেমিকদের বিধ্বস্ত কবর

চোখের সামনে রাতভর নীলরজ্জু এক মুকুতা দোলায়
আর যেন তারার চুমকি-জ্বালা সেই অন্তর্বাস
যথার্থই সৎচেষ্টায় খুলে দিয়ে আকাশ দেখায়
খেলোয়াড়ের মতন একে-একে শূন্যতার সবগুলো ভাঁজ

তার সামনে সর্পের বঙ্কিম, শান্ত চতুরালি, স্পষ্টত নিষ্পাপ
ফোলা-গাল সাপুড়ের ভেঁপু একেবারে নির্ভয়, বিপদমুক্ত,
হস্তের অব্যর্থ ফাঁদে দেয় গলা বাড়িয়ে প্রেমিকা
ঝাঁপিতে আটকে রেখে বাতি-না-জ্বেলেই শোয়া যায়।

এ হেন অনেক কিছু, একটু আয়াসে চিনেবাদামের খোসা
ভাঙতে-ভাঙতে পার হওয়া যায় হে দীপ্ত প্রেমিক, বন্ধু, ভাই
যথা শান্ত দুপুরে দেলাক্রোয়ার ক্রুদ্ধ, রুদ্ধ মত্ত অশ্বারোহী
ট্রেনে-কাটা শূকরের লালরক্ত, মৃত্যু, আর্তনাদ!

কিছুই শোনে না কেউ তলপেটে অনাস্বাদিত বিহ্বল কাম
আত্মার ভেতরে ওড়ে নীলমাছি বিরক্তির, মগজে উদ্যান।
দীর্ঘজীবী হোক তবু যেন তার সব স্বপ্নক্রীড়া
মাঝরাতে যে কারণে হিমহস্ত টেবিল বাজায়
p.28
also at facebook page


তোমাকে অভিবাদন প্রিয়তমা (tomAke abhibAdan, priyatamA 1974)


বৈষ্ণব : শহীদ কাদরী


শাদা রাস্তা চ'লে গেছে বুকের মধ্যে
শাদা রাস্তা চ'লে গেছে বুকের মধ্যে
পাতার সবুজ সম্মিলিত কাঁচা শব্দে
যে তোমাকে ডেকেছিলো 'রাধা',
আধখানা তার ভাঙাগলা, আধখানা তার সাধা ।
   p.76


বাংলা কবিতার ধারা : শহীদ কাদরী


কে যেন চিৎকার করছে প্রাণপণে `গোলাপ! গোলাপ!'
ঠোঁট থেকে গড়িয়ে পড়ছে তার সুমসৃণ লালা,
`প্রেম, প্রেম' বলে এক চশমা-পরা চিকণ যুবক
সাইকেল-রিকশায় চেপে মাঝরাতে ফিরছে বাড়ীতে,
`নীলিমা, নিসর্গ, নারী'- সম্মিলিত মুখের ফেনায়
পরস্পর বদলে নিলো স্থানকাল, দিবস শর্বরী হলো
সফেদ পদ্মের মতো সূর্য উঠলো ফুটে গোধূরির রাঙা হ্রদে
এবং স্বপ্নের অভ্যন্তরে কবিদের নিঃসঙ্গ করুণ গণ্ডদেশে
মহিলার মতো ছদ্মবেশে জাঁদরেল নপুংসক এক
ছুড়ে মারলো সুতীক্ষ্ণ চুম্বন।
p.79

মাংস, মাংস, মাংস : শহীদ কাদরী


আমাকে রাঙাতে পারে তেমন গোলাপ
কখনও দেখি না। তবে কাকে, কখন, কোথায়
ধরা দেবো? একমাত্র গোধূলি বেলায়
সবকিছু বীরাঙ্গনার মতন রাঙা হয়ে যায়।
শৈশবও ছিলো না লাল। তবে জানি,
দেখেছিও, ছুরির উজ্জ্বলতা থেকে ঝরে পড়ে বিন্দু বিন্দু লাল ফোঁটা

তবে হাত রাখবো ছুরির বাঁটে? সবুজ সতেজ-
রূপালি রেকাবে রাখা পানের নিপুণ কোনো খিলি নয়,
মাংস, মাংস, মাংস...  মাংসের ভেতরে শুধু
দৃঢ়মুখ সার্জনের রূঢ়তম হাতের মতন
খুঁজে নিতে হবে সব জীবনের রাঙা দিনগুলি ...

p.84

টাকাগুলো কবে পাবো

"The world owes me a million dollars"
- Gregory Corso

টাকাগুলো কবে পাবো? সামনের শীতে?
আসন্ন গ্রীস্মে নয়?
তবে আর কবে! বৈশাখের ঝড়ের মতো
বিরূপ বাতাসে ঝরে পড়ছে অঝোরে
মণি মাণিক্যের মতো মূল্যবান চুলগুলো আমার এদিকে-
ওদিকে! এখনই মনি-অর্ডার না যদি পাঠাও হে সময়,
হে কাল, হে শিল্প,
তবে
কবে? আর কবে?
যখন পড়বে দাঁত, নড়বে দেহের ভিৎ ?

দ্যাখো দ্যাখো, মেঘের তালি-মারা নীল শার্ট প’রে
ফ্রিজিডেয়ার অথবা কোনো রেকর্ড প্লেয়ার ছাড়া
খামোকা হুল্লোড় করতে করতে যারা পৌঁছে যায়
দারুণ কার্পেটহীনভাবে কবিতার সোনালি তোরণে
সেই সব হা-ঘরে, উপোসী ও উল্লুকদের ভীড়ে
মিশে গিয়ে
আমিও হাসছি খুব বিশ্ববিজয়ীর মতো মুখ করে।
আমাকে দেখলে মনে হবে-
গোপন আয়ের ব্যবস্থা ঠিকই আছে।
-আছেই তো। অস্বীকার কখনো করেছি আমি
হে কাল, হে শিল্প?
ওরা জানে না এবং কোনোদিন জানবে না-

পার্কের নি:সঙ্গ বেঞ্চ,
রাতের টেবিল আর রজনীগন্ধার মতো কিছু শুভ্র সিগারেট ছাড়া
কেউ কোনোদিন জানবে না -- ব্যক্তিগত ব্যাঙ্ক এক
আমারও রয়েছে! ‘রবীন্দ্র রচনাবলী’ নামক বিশাল
বাণিজ্যালয়ের সাথে যোগাযোগ আমিও রেখেছি।
তাছাড়া জীবনান্দ দাশ এবং সুধীন্দ্রনাথসহ
ওসামু দাজাই
আমাকে টাকা পয়সা নিয়মিতভাবে এখনও পাঠান
বলতে পারো এ ব্যবসা বিশ্বব্যাপী --
একবার শার্ল বোদলেয়ার প্রেরিত এক পিপে সুরা আমি
পেয়েছিলাম কৈশরে পা রেখে,
রিল্কে পাঠিয়েছিলেন কিছু শিল্পিত গোলাপ
(একজন প্রেমিকের কাছে আমি বিক্রি করেছি নির্ভয়ে)
এজরা পাউন্ড দিয়েছিলেন অনেক ডলার
রাশি রাশি থলে ভরা অসংখ্য ডলার
(ডলার দিয়ে কিনেছি রাতের আকাশ)
এবং একটি গ্রীক মুদ্রা
(সে গ্রীক মুদ্রাটি সেই রাতের আকাশে নিয়মিত জ্বলজ্বল করে)

অতএব কপর্দক-শূন্য আমি, কোনো পুণ্য নেই
আমার বিব্রত অস্তিত্বের কাছে
কেউ নয় ঋণী- এমন দারুণ কথা
কি করে যে বলি! যেদিকে তাকাই
পার্কে, পেভমেন্টে, আঁধারে, রাস্তায়
রেস্তোরায়ঁ, ছড়ানো ছিটানো
প্রজ্জ্বোল কবিতাগুলো চতুর্দিক থেকে উঠে এসে
দুটো নিরপরাধ নরম বই হয়ে ইতিমধ্যে
তোমাদের নোংরা অঙ্গুলির নীচে চলে গেলো,
এই কি যথেষ্ট নয়? এতেই কি লক্ষ লক্ষ টাকা
লেখা হলো না আমার নামে, পাওনা হলো না?
হে সময়, হে কাল, হে শিল্প. হে বান্ধববৃন্দ,
টাকাগুলো কবে পাবো, কবে, কবে, কবে?
  p.104

তোমাকে অভিবাদন প্রিয়তমা : শহীদ কাদরী


      This love poem, set against a background of war, is possibly Shahid
      Kadri's best known poem.

ভয় নেই
আমি এমন ব্যবস্থা করবো যাতে সেনাবাহিনী
গোলাপের গুচ্ছ কাঁধে নিয়ে
মার্চপাস্ট করে চলে যাবে
এবং স্যালুট করবে
কেবল তোমাকে প্রিয়তমা।

ভয় নেই, আমি এমন ব্যবস্থা করবো
বন-বাদাড় ডিঙ্গিয়ে
কাঁটা-তার, ব্যারিকেড পার হয়ে, অনেক রণাঙ্গনের স্মৃতি নিয়ে
আর্মার্ড-কারগুলো এসে দাঁড়াবে
ভায়োলিন বোঝাই করে
কেবল তোমার দোরগোড়ায় প্রিয়তমা।

ভয় নেই, আমি এমন ব্যবস্থা করবো-
বি-৫২ আর মিগ-২১গুলো
মাথার ওপর গোঁ-গোঁ করবে
ভয় নেই, আমি এমন ব্যবস্থা করবো
চকোলেট, টফি আর লজেন্সগুলো
প্যারাট্রুপারদের মতো ঝরে পড়বে
কেবল তোমার উঠোনে প্রিয়তমা।

ভয় নেই...আমি এমন ব্যবস্থা করবো
একজন কবি কমান্ড করবেন বঙ্গোপসাগরের সবগুলো রণতরী
এবং আসন্ন নির্বাচনে সমরমন্ত্রীর সঙ্গে প্রতিযোগিতায়
সবগুলো গণভোট পাবেন একজন প্রেমিক, প্রিয়তমা!

সংঘর্ষের সব সম্ভাবনা, ঠিক জেনো, শেষ হবে যাবে-
আমি এমন ব্যবস্থা করবো, একজন গায়ক
অনায়াসে বিরোধীদলের অধিনায়ক হয়ে যাবেন
সীমান্তের ট্রেঞ্চগুলোয় পাহারা দেবে সারাটা বৎসর
লাল নীল সোনালি মাছি-
ভালোবাসার চোরাচালান ছাড়া সবকিছু নিষিদ্ধ হয়ে যাবে, প্রিয়তমা।

ভয় নেই
আমি এমন ব্যবস্থা করবো মুদ্রাস্ফীতি কমে গিয়ে বেড়ে যাবে
শিল্পোত্তীর্ণ কবিতার সংখ্যা প্রতিদিন
আমি এমন ব্যবস্থা করবো গণরোষের বদলে
গণচুম্বনের ভয়ে
হন্তারকের হাত থেকে পড়ে যাবে ছুরি, প্রিয়তমা।

ভয় নেই,
আমি এমন ব্যবস্থা করবো
শীতের পার্কের ওপর বসন্তের সংগোপন আক্রমণের মতো
অ্যাকর্ডিয়ান বাজাতে-বাজাতে বিপ্লবীরা দাঁড়াবে শহরে,

ভয় নেই, আমি এমন ব্যবস্থা করবো
স্টেটব্যাঙ্কে গিয়ে
গোলাপ কিম্বা চন্দ্রমল্লিকা ভাঙালে অন্তত চার লক্ষ টাকা পাওয়া যাবে
একটি বেলফুল দিলে চারটি কার্ডিগান।
ভয় নেই, ভয় নেই
ভয় নেই,
     আমি এমন ব্যবস্থা করবো
নৌ, বিমান আর পদাতিক বাহিনী
কেবল তোমাকেই চতুর্দিক থেকে ঘিরে-ঘিরে
       নিশিদিন অভিবাদন করবে, প্রিয়তমা।

  p.111






.

No hay comentarios:

Publicar un comentario en la entrada